জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ১ম বর্ষ ভর্তি আবেদন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ১ম বর্ষ ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। অনলাইনে আবেদন করা যাবে, ১৪ই আগষ্ট ২০২১ পর্যন্ত। চলুন ...
Photo: QnABangla.com

২৮শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৪ টা থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ১ম বর্ষ ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। অনলাইনে আবেদন করা যাবে, ১৪ই আগষ্ট ২০২১ পর্যন্ত। চলুন তাহলে, কথা না বাড়িয়ে ধাপে ধাপে আমরা আবেদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে জেনে নেই।

How to apply for National University Honours Admission

এক নজরে অনার্স ভর্তি কার্যক্রম
  • আবেদন শুরু হয়েছে: ২৮ জুলাই ২০২১
  • আবেদন শেষ হবে: ১৪ আগষ্ট ২০২১
  • আবেদন ফি: ২৫০ টাকা
  • ফি জমাদানের শেষ তারিখ: ১৬ আগষ্ট ২০২১
  • অনলাইনে ক্লাশ শুরু: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • আবেদনের লিঙ্ক: http://app1.nu.edu.bd/

অনার্স ১ম বর্ষ ভর্তি আবেদন

How to apply to National University Video

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ১ম বর্ষের ভর্তি আবেদন করতে হবে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। প্রত্যেক আবেদনকারীকে অনলাইনে আবেদন করার সময় বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে অনুরোধ করা হলো। নির্ভুলভাবে সঠিক তথ্য সরবরাহ করতে না পারলে বা আবেদনে ভুল হলে ভোগান্তিতে পড়তে হবে আপনাকেই। আবেদন জমা দেওয়ার পদ্ধতিগুলো এক ঝলক দেখে নিন–

ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দেখেন নি? এখানে দেখুন।

আবেদন করতে যা যা লাগবে
  • SSC রেজিস্ট্রেশন কার্ড: SSC পরীক্ষার রোল, রেজিস্ট্রেশন নাম্বার, বোর্ড, পাশের সন।
  • HSC রেজিস্ট্রেশন কার্ড: SSC ও HSC পরীক্ষার রোল, রেজিস্ট্রেশন নাম্বার, বোর্ড, পাশের সন।
  • সচল মোবাইল নাম্বার: পরবর্তীতে সকল প্রকার যোগাযোগের জন্য এই নাম্বার ব্যবহৃত হবে।
  • ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি: ছবিতে কান দৃশ্যমান থাকতে হবে। ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড সাদা বা নীল।

Application process (আবেদন প্রক্রিয়া)

প্রথম ধাপ (Step One)

প্রথমে আবেদনকারীকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি আবেদন করতে http://app1.nu.edu.bd -এই লিঙ্কে ভিজিট করতে হবে। ভিজিট করার পর আবেদনকারী নিম্নোক্ত ইন্টারফেজ দেখতে পাবে।

এখানে আপনার SSC ও HSC পরীক্ষার রোল, রেজিস্ট্রেশন নাম্বার, বোর্ড, পাশের সন লিখতে হবে।

দ্বিতীয় ধাপ (Step Two)

উপরের ফরমে এসএসসি এবং এইচএসসি'র তথ্যগুলো টাইপ করে NEXT বাটনে ক্লিক করুন। আপনার প্রদত্ত তথ্য যদি সঠিক থাকে এবং রেজিস্ট্রেশন বা ভর্তি আবেদন করার ন্যূনতম যােগ্যতা থাকে তাহলে আপনার অন্যান্য তথ্সহ নিচের স্ক্রিনের মত দেখাবে।

এখানে যদি আবেদনকারীর সব তথ্য সঠিক হয়। যেমন নাম, পিতার নাম, মাতার নাম, জন্ম তারিখ এবং লিঙ্গ সঠিক থাকে তাহলে Next বাটনে ক্লিক করতে হবে।
এখানে যদি কোনো আবেদনকারীর লিঙ্গ ভুল থাকে তাহলে সে তার লিঙ্গ পরিবর্তন করতে পারবে। অনুরূপভাবে, যদি জন্ম তারিখ যদি ভুলে ২২ বছরের বেশী থাকে তাহলে সঠিক জন্ম তারিখ দিতে পারবে।

এই দুইটি তথ্য কেউ পরিবর্তন করলে জন্য সে সম্পূর্ণ দায়ী থাকবে এবং পরিবর্তনের পর ভুল প্রমাণিত হলে তার ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে। অর্থাৎ, এ পরিবর্তনের জন্য আবেদনকারী সম্পূর্ণরূপে দায়ী থাকবে।

এইক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। তথ্য ভুল থাকলে সঠিক তথ্য দিয়ে তা পরিবর্তন করুন। নইলে করার দরকার নেই।

তৃতীয় ধাপ (Step Three)

তৃতীয় ধাপেই সকল কাজ সম্পাদিত হবে। এটা মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। এখানেই একজন আবেদনকারী তার ভর্তি যোগ্যতা অনুসারে পছন্দের কলেজ এবং বিষয় সিলেক্ট করবে।

লক্ষনীয় বিষয় হচ্ছে, এখানে মোট চারটি কলাম রয়েছে।
  1. Eligible Subject List বা যোগ্য বিষয়ের তালিকা।
  2. College Selection বা কলেজ নির্বাচন।
  3. Subject বা বিষয়।
  4. Preferred Subject List বা পছন্দের বিষয় তালিকা।

সর্ব বামে বা প্রথম কলামে, Eligible Subject List কলামে আবেদনকারী তার ভর্তি যােগ্য বিষয়ের তালিকা দেখতে পারবে।

দ্বিতীয় কলাম থেকে কলেজ নির্বাচন করতে হবে। এজন্য, প্রথমে বিভাগ (Division) নির্বাচন ও পরে জেলা (District) নির্বাচন করার পর পছন্দের কলেজ (Select Desired College) নির্বাচন করতে হবে।

► কলেজ নির্বাচন করার পূর্বে যেসব বিষয় মাথায় রাখতে হবে:
  • এসএসসি আর এইচএসসি এই দুটি মিলে কেমন পয়েন্ট আছে।
  • এমন কলেজ চয়েজ তালিকায় রাখতে হবে যেনো প্রথম অবস্থাতেই চান্স হয়ে যায়।
  • বিষয় বাছাই করার সময় পছন্দের বিষয়গুলো প্রথম তালিকায় রেখে বাকীগুলো দিতে হবে।

  • যাদের মোট পয়েন্ট ৬.০০ এর কম আছে তারা ভালো কলেজে আবেদন না করাই উত্তম। অথবা, ডিগ্রীতে ভালো কলেজে ভর্তি হয়ে যেতে পারেন।
  • যাদের মোট পয়েন্ট ৬.০০/৭.০০ এর মধ্যে তারা অনেক ভালো কলেজ বা ভালো বিষয় দিয়ে চয়েজ করলে চান্সে নাও হতে পারে। এজন্য একটু নরমাল কলেজে চেষ্টা করা যেতে পারে। সেটা হতে পারে বেসরকারি কলেজ। কেননা, এই পয়েন্টে সরকারি কলেজে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা মাত্র ৪০%।
  • আবার যাদের মোট পয়েন্ট ৭.৫০ থেকে ৮.০০ আছে। তারা ভালো কলেজ বাছাই করতে পারেন। তাদের চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা ৮০% থাকে।
  • যাদের মোট পয়েন্ট ৮.০০-১০.০০ আছে। তারা একদম ভালো কলেজে(সরকারী বা নামকড়া) ভালো বিষয় পছন্দ করে আবেদন করতে পারেন।

  • আবেদন করতে বিলম্ব করলে পরে একটু সমস্যা হয়। যেমন, একই কলেজে আবেদনকারীদের মধ্যে যাদের ফলাফল ভালো তারাই প্রথম সুযোগ পাবেন। এছাড়াও আগে আগে অ্যাপ্লাই না করলে আসন বা সিট সংখ্যাও ফাঁকা থাকে না।
  • উল্লেখ্য যে, ইংরেজি/গণিত বিষয় পেতে চাইলে অবশ্যই যেনো মোট ৯.০০ পয়েন্ট থাকে। বিজ্ঞান বিভাগের বিষয়গুলো পেতে চাইলে মোট পয়েন্ট ৮.৫০-১০.০০ থাকতে হবে।

(প্রথম কলামে যে সাবজেক্টগুলো ছিলো তা হচ্ছে, আবেদনকারীর ভর্তি যোগ্য বিষয়। আর কলেজ সিলেক্ট করার পর তৃতীয় কলামের উল্লেখিত সাবজেক্ট হচ্ছে, আবেদনকারীর পছন্দকৃত কলেজে যে বিষয়গুলো নিয়ে পড়া যাবে সেটার তালিকা।)

কলেজ সিলেক্ট করার পরপরই আবেদনকারী তার নির্বাচিত কলেজে, ভর্তি যােগ্য বিষয়গুলোর তালিকা দেখতে পাবেন। এই তালিকা থেকেই একজন আবেদনকারী তার পছন্দক্রম অনুসারে বিষয় নির্বাচন করবেন। উল্লেখ্য, আপনি যে বিষয় নিয়ে পড়তে চান তা সবার আগে সিলেক্ট করুন। এরপর ধাপে ধাপে পছন্দক্রম অনুসারে দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম এভাবে সিলেক্ট করতে থাকুন।

সেজন্য আপনি আপনার প্রথম পছন্দের বিষয়ের উপর একবার ক্লিক করলে, সাথে সাথে ঐ বিষয়টি চয়েজ লিস্টে (Preferred Subject List) চলে যাবে (চতুর্থ কলামে।) পছন্দক্রম অনুসারে দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম এভাবে সিলেক্ট করতে থাকুন। একজন শিক্ষার্থী সর্বোচ্চ ১৫টি বিষয় নির্বাচন করতে পারবেন।

বিষয় নির্বাচন করা শেষ হলে, ভালোভাবে কয়েকবার দেখে তারপর Next বাটনে ক্লিক করুন।

চতুর্থ ধাপ (Step Four)

আপনি যদি কোটা'র যােগ্য হোন তবে Yes নির্বাচন করে, যে কোটায় আবেদন করতে চান সেটি নির্বাচন করে Next বাটনে ক্লিক করুন। কোটা গুলো হচ্ছে:

  • মুক্তিযোদ্ধা কোটা।
  • আদিবাসি কোটা।
  • প্রতিবন্ধী কোটা।
  • পোষ্য কোটা।

আর কোটা প্রযোজ্য না হলে "No" সিলেক্ট করে Next বাটনে ক্লিক করুন।

পঞ্চম ধাপ (Step Five)

সর্বশেষ ধাপ হচ্ছে ছবি সংযােজন বা ছবি আপলোড করা। সেক্ষেত্রে সম্প্রতি তােলা পাসপাের্ট সাইজ ছবি আপলোড করতে হবে। এখানে লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে ছবির সাইজ 120X150 pixel, jpg ফরম্যাট (.jpg) এবং 50 KB এর বেশি না হয়। ছবির সাইজ অনলাইন থেকেও ইডিট করা যাবে। সেজন্য ছবি আপলোড করার পর নিচে থাকা click here to edit your photo online লিঙ্কে ক্লিক করে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে ছবি এডিট করতে পারবেন।
ছবি সংযােজন শেষ হলে সর্বশেষে আবেদনকারীর বা অভিভাবকের সচল মোবাইল নাম্বার দিতে হবে। কারণ, পরবর্তীতে যেকোনো ধরণের যােগাযােগ করার জন্য আপনার প্রদত্ত মোবাইল নাম্বার ব্যবহৃত হবে।

ষষ্ঠ ধাপ (Step Six)

আপনার সব তথ্য এক নজরে দেখার জন্য Preview Application বাটনে ক্লিক করুন। এখানে সে তার সব তথ্য এক সাথে দেখতে পারবে। সব তথ্য সঠিক থাকলে Submit Application বাটনে ক্লিক করে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে।

Submit করার পর Admission Roll No. ও PIN Number এবং পাশে Download Admit Card অপশনটি দেখতে পারবেন। আবেদনকারীকে অবশ্যই Admit Card Download করতে হবে এবং Admission Roll No. ও PIN Number সেভ রাখতে হবে।

এই Admission Roll No. অনার্স ভর্তির Roll Number হিসাবে গণ্য হবে। PIN Number টি গােপন রাখতে হবে। পরবর্তীতে আবেদনকারী এই Admission Roll No. ও PIN Number দিয়ে তার Student Login এ নিজের প্রােফাইল দেখতে পারবেন।

সপ্তম ধাপ (Step Seven)

Admission Roll No. ও PIN Number সংগ্রহ করে Admit Card ডাউনলোড করলে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। Admit Card ডাউনলোড করার পর অবশ্যই প্রিন্ট করে রাখবেন।

You must download the Admit card and print it and submit to the college authority Failing to do so will result in cancelling your Online Application

আবেদনকারীর প্রোফাইল (Applicant profile)

Student Login

Student Login অপশন থেকে আবেদনকারী নিজের প্রােফাইল দেখতে পারবেন। এই লিঙ্কে ক্লিক করলে নিচের মতো লগ-ইন পেইজ আসবে।

View Application

লগ-ইন করার পর, বাম পাশে থাকা মেন্যুগুলোর মাধ্যমে আবেদনকারী তার রেজিস্ট্রেশনের সর্বশেষ অবস্থা দেখতে পারবে। যেমন, View Application ক্লিক দিলে নিচের মত স্ক্রিন দেখা যাবে।

View Application ক্লিক করার পর, Status অপশনে যদি লেখার পেছনে লাল রঙ থাকে তাহলে এর মানে রেজিস্ট্রেশন হয়েছে, কিন্তু এখনো কলেজ কর্তৃক Receive হয় নি। আবেদনকারী এই পর্যায়ে তার আবেদন বাতিল ও ছবি পরিবর্তনের সুযোগ পাবে।

Form Cancel/Photo Change Option

আবেদন ফরম সংশ্লিষ্ট কলেজে জমাদানের পূর্বে কোন প্রার্থী তার প্রাথমিক আবেদন ফরমটি বাতিল বা ত্রুটিপূর্ণ ছবি পরিবর্তন করতে ইচ্ছুক হলে তাকে Applicant’s Login (Honours) অপশনে গিয়ে আবেদন ফরমের রােল নম্বর ও পিন এন্ট্রি দিতে হবে। এ পর্যায়ে আবেদনকারীকে Form Cancel/Photo Change Option এ গিয়ে Click to Generate the Security key অপশনটি ক্লিক করতে হবে। এ সময়ে প্রার্থী তার আবেদন ফরমে উল্লিখিত ব্যক্তিগত মােবাইল নম্বরে SMS এর মাধ্যমে One Time Password (OTP) পাবে। এই OTP এন্ট্রি দিয়ে প্রার্থী তার আবেদন ফরমটি বাতিলপূর্বক নতুন করে আবেদন ফরম পূরণ করতে পারবে। এ লক্ষ্যে আবেদনকারীকে তার ব্যক্তিগত সঠিক মােবাইল নম্বর সতর্কতার সঙ্গে আবেদন ফরমে এন্ট্রি দিতে হবে। তবে কলেজ কর্তৃক প্রাথমিক আবেদন ফরম নিশ্চয়ন করার পর তা আর বাতিল করা যাবে নাপ্রার্থী ছবি পরিবর্তনের সুযােগ মাত্র একবারই পাবে।

Change applicant’s Photo তে ক্লিক করে আবেদনকারী তার ছবি পরিবর্তন করতে পারবে। তবে, নতুন করে আবেদন বা ছবি পরিবর্তন করলে, অবশ্যই নতুনভাবে আবার Admit Card Download করতে হবে। ডাউনলোড করার পর Admit Card নির্দিষ্ট ফি দিয়ে কলেজে জমা দিয়ে Student কপি নিয়ে আসতে হবে। এটি পরীক্ষার হলে Admit Card হিসাবে গণ্য হবে।
নতুন আবেদন ও ছবি একবারই পরিবর্তন করা যাবে।

যদি কলেজ রিসিভ করে তাহলে ঐ Applicant একটি Confirmation SMS পাবে এবং Status অপশনটি Submitted থেকে সবুজ রংয়ের মাঝে লেখা হয়ে যাবে। কলেজ কর্তৃক Received হওয়ার পর আবেদনকারী আর কোনো তথ্য পরিবর্তন করতে পারবেন না।

Notice Board

এছাড়াও নোটিশ বোর্ডে ক্লিক করলে ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে গুরুত্বপূর্ণ নোটিশ দেখতে পারবেন।

Logout

আবেদনকারীর সব কাজ শেষ হলে Logout- এ ক্লিক করে ওয়েবসাইট থেকে বের হয়ে যাবেন।

উপরোক্ত তথ্য সমূহ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই সংগ্রহ করা। পিডিএফ আকারে দেখতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

অনার্স ভর্তির সকল আপডেট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটে চোখ রাখুন অথবা আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হোন।

স্বীকারোক্তিঃ এই ওয়েবসাইটে উপস্থাপিত তথ্যসমূহ ইন্টারনেট থেকেই সংগৃহীত। আমাদের অগোচরে অনিচ্ছাকৃত ভুল থাকতে পারে। ভুল হলে আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী এবং কোনো ভুল তথ্যের জন্য QNABangla কোনভাবেই দায়ী নয়। আপনি কোনো ভুল দেখে থাকলে দৃশ্যমান ভুলটি আমাদের জানান। আমরা সেটা শুধরে নিবো।

ই-মেইল করুন qnabangla.com@gmail.com অথবা এখানে ক্লিক করুন।

Post a Comment

© QnABangla. All rights reserved. Premium By Raushan Design